বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানসমূহ

দক্ষিন এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যে বিখ্যাত হয়ে আছে। পাহাড়, নদ নদী, চা বাগান, ফরেস্ট ইত্যাদি বাংলাদেশকে অপরুপ সৌন্দর্যে ঢেকে রেখেছে। ভ্রমন পিপাসুদের জন্যে বাংলাদেশে যেমন অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে তেমনি রয়েছে ভ্রমনকালীন সাময়িক থাকার জন্যে বহু হোটেল, রিসোর্ট। এসব হোটেল, রিসোর্টগুলোর উচ্চ আতিথেয়তার জন্যে মানুষ বার বার ছুটে যায় সেই আহ্ববানে। আজকের আর্টিকেলে বাংলাদেশের কয়েকটি দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে আলোচনা করব।

কক্সবাজার 

সারা বছর ঘুরে বেড়ানো পর্যটকদের জন্য কক্সবাজার বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় স্থানগুলির মধ্যে একটি । জেলাটি দেশের দক্ষিণ-পূর্ব অংশে অবস্থিত এবং বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত। কক্সবাজারের কথা আসলেই মনে হবে সূর্য, সমুদ্র এবং বালির কথা । ইনানী, কোলাতলী, সুগন্ধা এবং লাবনী পয়েন্ট এই সৈকতের কয়েকটি মনোরম জায়গা। এছাড়াও আপনি এই অঞ্চল জুড়ে অনেকগুলো সুন্দর সুন্দর হোটেল এবং রিসর্ট খুজে পাবেন ।  হিমছড়িতে পাহাড়ের চূড়া এবং জলপ্রপাত রয়েছে ।

এছাড়া কক্সবাজার ক্রেতাদের স্বর্গরাজ্য। বার্মিজ বাজারের সেখানে একটি শক্তিশালী প্রভাব রয়েছে। আপনি এখানে দোকান জুড়ে সজ্জা, সুন্দর সুন্দর পোশাক, গৃহস্থালীর আইটেম, কাটলারি, রান্নাঘরের সরঞ্জামাদি এবং প্রসাধনীগুলির বিশাল সংগ্রহ পাবেন।

আপনি যদি সামুদ্রিক খাবার পছন্দ করেন, তাহলে তাজা পরিবেশন করা বিভিন্ন ধরণের সামুদ্রিক খাবারের জন্য রেস্টুরেন্ট বা রাস্তার পাশের দোকানে যেতে পারেন।

সিলেট

বাংলাদেশের মানচিত্রে চোখ রাখলেই দেশের পূর্বাঞ্চলে সিলেটকে সনাক্ত করতে পারবেন খুব সহজে। এটি শুধু দেশের অন্যতম সবুজ জেলাই নয়, এখানে বৃষ্টিপাতের পরিমাণও সবচেয়ে বেশি। 

সিলেট তার হ্রদ এবং অন্যান্য জলাশয়ের জন্য বেশ জনপ্রিয়। সিলেট চা বাগান এবং ছোট ছোট গ্রীষ্মমন্ডলীয় বনের আবাসস্থল। রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট একটি মিঠা পানির জলাভূমি ও 

সিলেটের একটি আইকনিক জায়গা যা পৃথিবী অন্য কোথাও খুজে পাওয়া কঠিন।

চতুর্দশ শতাব্দীতে মহান মুসলিম সাধক শাহ জালালকে এই জেলাতেই সমাহিত করা হয়েছিলো। তার সমাধিস্থলটি এখন মাজারে পরিণত হয়েছে এবং এটি বর্তমানে শাহজালাল দরগাহ নামে পরিচিত, যেখানে সারা বছর লক্ষাধিক মানুষ আসেন। 

সিলেটে অনেক সুন্দর সুন্দর চা বাগান এবং বেশ কিছু জাদুঘর রয়েছে যা দেখার মতো। এই জেলার সৌন্দর্য ও অন্যান্য বৈশিষ্ট্যের জন্যে প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ পর্যটক ও দোয়াপ্রার্থী মানুষজন ছুটে আসে এখানে।

সুন্দরবন

সুন্দরবন পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন এবং হাজার হাজার প্রজাতির গাছ ও প্রাণীর আবাসস্থল। এটি বাংলাদেশের শীর্ষ পর্যটন আকর্ষণগুলির মধ্যে একটি এবং এটি বাংলাদেশের জাতীয় পশু রয়েল বেঙ্গল টাইগারের আবাসস্থল। 

সুন্দরবনে ছোট ছোট সৈকত এবং দ্বীপ রয়েছে যা সারা দিন উপভোগ করা যায়, বিশেষ করে সূর্যাস্তের সময়। এছাড়াও নির্জন ঘন বনের মধ্য দিয়ে হাঁটতে খুব ভালো লাগে। সুন্দরবনে নৌ ভ্রমনের সময় মাঝে মাঝে বাঘ দেখতে পাওয়া যায়। বিচিত্র সব প্রানীতে ভরপুর সুন্দরবন। হিরন পয়েন্ট, বা নীলকোমল জায়গাগুলোতে বেশির এসব প্রানীর দেখা মেলে, ভাগ্য ভালো হলে বাঘও দেখতে পারেন।

সেন্ট মার্টিন আইসল্যান্ড

কক্সবাজার এবং বঙ্গোপসাগরের কাছাকাছি অবস্থিত  সেন্ট মার্টিন একটি ছোট দ্বীপ । সেন্ট মার্টিন বাংলাদেশের খুব জনপ্রিয় একটি দ্বীপ। এখানে বিশ্বের বহু দেশ থেকে পর্যটকগন ঘুরতে আসে। ছোট এই দ্বীপটি এক দিনের মধ্যে সম্পূর্ন ঘুরে শেষ করা যায় । দ্বীপে কোন যানবাহন চলাচলের অনুমতি নেই । সেন্ট মার্টিনের একটি এক্সটেনসন হলো ছেড়াদ্বীপ। স্পিডবোটের মাধ্যমে এখানে যাওয়া যায়। এখানকার সামুদ্রিক পরিবেশে যে কেউ হারিয়ে যেতে চাইবে প্রকৃতির মাঝে।

দ্বীপের সৌন্দর্য উপভোগ করতে যখন দ্বীপ ঘুরে বেড়াবেন তখন স্কুবা ডাইভিং, সাইক্লিং ইত্যাদি করতে পারেন, এটি আপনাকে বাড়তি আনন্দ দিবে। 

খাগড়াছড়ি ও সাজেক ভ্যালি

খাগড়াছড়ি পার্বত্য চট্টগ্রামের অংশ । হাইকার এবং ট্রেকারদের খুব  জনপ্রিয় একটি জায়গা। খাগড়াছড়িতে বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর ঝর্ণা দেখতে পাওয়া যায়। 

আলুটিলা গুহা এবং সাজেক উপত্যকা দুটিই খাগড়াছড়ির জনপ্রিয় পর্যটন স্পট। আলুটিলা গুহা প্রায় বিশ মিনিটে পার হওয়া যায়। রোমাঞ্চ-সন্ধানীরা রুক্ষ কাদামাটি পাথর এবং বরফের ঠান্ডা জলের মধ্য দিয়ে অ্যাডভেঞ্চার উপভোগ করবে। 

সাজেক ভ্যালিও অন্যরকম সুন্দর একটি জায়গা। তরুন প্রজন্মের খুব পছন্দের এই ছোট্ট উপত্যকার সিঙ্গেল-ট্র্যাক রাস্তার উভয় পাশে প্রচুর রিসর্ট এবং রেস্তোরাঁ রয়েছে। যেহেতু উপত্যকাটি অনেক উচ্চতায় অবস্থান করায় এখানে বাস্তবে মেঘ স্পর্শ করার অনুভূতি পাওয়া যায়।

সাজেকে কংলাক নামে একটি ছোট পাহাড়ও রয়েছে, এই পাহাড়টি হাইকারদের জন্যে বেশ জনপ্রিয়। পুরো সাজেক দুই দিনে ঘুরে দেখা যায় । এই দুই দিনের ট্রিপটি একটি আদর্শ ট্রিপ কারন উইকেন্ডেও চাইলে ঘুরে আসা যায়।

রাঙ্গামাটি ও কাপ্তাই লেক

রাঙ্গামাটি চট্টগ্রামে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় পার্বত্য অঞ্চল ও দেশের বৃহত্তম জেলা। এই জেলায় বহু আদিবাসী উপজাতি বসবাস করে । অনেক মন্দির এবং উপাসনালয় রয়েছে এ জেলায়। 

কাপ্তাই রাঙ্গামাটির সবচেয়ে সুন্দর একটি উপজেলা। কাপ্তাই লেকে কায়াকিং, চমৎকার শুভলং জলপ্রপাত, এবং লেকের তীর সংযোগকারী রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত ব্রীজ, নেভি ক্যাম্প, জীফতলী সেনানিবাসসহ রাঙামাটিতে  আপনার জন্য অপেক্ষা করছে এমন অনেক বিস্ময়।

কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান হলো বিশাল বনভূমি। এই বনভূমিতে দেখতে পাওয়া যায় বন্য হাতি। এই উদ্যানের ভেতর দিয়ে গেছে আকাবাকা সড়ক। সড়কের পাশে কর্ণফুলী নদী। সব মিলিয়ে এক নৈসর্গিক ছবি। রাঙামাটি সাংস্কৃতিক জাদুঘরে কিছু সময় কাটাতে ভুলবেন না। আপনি মন্দির এবং বিহারগুলিতেও যেতে পারেন, তবে ধর্মীয় উত্সবগুলির সময় উপাসকদের বিরক্ত না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

 

 / 

Sign in

Send Message

My favorites